• আজঃ বৃহস্পতিবার, ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ ইং
  • English
ব্রেকিং নিউজঃ

ভারতে তো জামায়াত আছে, নিষিদ্ধ হয় না কেন: প্রশ্ন গয়েশ্বরের

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, ‘আজকে আওয়ামী লীগ কথায় কথায় ‘জামায়াত, জামায়াত’ বলে। এটাতো একটা ভুয়া কথা। ইন্ডিয়াতেও তো জামায়াত আছে, তারা ব্যান্ড/নিষিদ্ধ করে না কেন? জামায়াত যদি দেশের গণতন্ত্রের পরিপন্থি হয় তাহলে ভারত সরকার জামায়াতকে ব্যান্ড করে না কেন? এটা শুধুমাত্র একটা পলিটিক্যাল চাল। এটা আপনাকে বুঝতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘এই যে তত্বাবধায়ক সরকার এই তত্বাবধায়ক সরকার কার ফর্মূলা? পার্লামেন্টে সর্বপ্রথম জামায়াতে ইসলামী ১৮ জন সংসদ সদস্য নিয়ে একটা বিল উত্থাপন করলো। আওয়ামী লীগ প্রথমদিকে তাতে সমর্থন না দিলেও জাতীয় পার্টির মওদুদ আহমেদ, কাজী জাফর ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এতে সমর্থন দেন।

সেদিন জামায়াতের অধ্যাপক গোলাম আজম ও মতিউর রহমান নিজামীর সাথে আওয়ামী লীগের ৩২ নম্বরের বাড়িতে যে বৈঠক করা হয়েছে সে ছবিতো এখনও আছে। সেদিন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জামায়াতের চিন্তা-চেতনায় তত্বাবধায়ক সরকার ইস্যুতে আন্দোলন করেছেন।’

বুধবার (১১ নভেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবে “৭ নভেম্বর জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস” উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম এ আলোচনা সভার আয়োজন করে। গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘আমি নিজে রক্ষীবাহিনীর সাথে সামনাসামনি অনেক যুদ্ধ করেছি। তাদের কথাবার্তা বা আচরণে মনে হয়নি তারা বাংলাদেশে জন্মগ্রহণকারী কেউ। অধিকাংশ রক্ষী বাহিনী ছিলো ভিনদেশি। কোন দেশি তা আমরা জানি না, তবে ভিনদেশি।’

তিনি বলেন, ‘আওয়াজ বা চিৎকারেও কিন্তু মানুষের পরিচয় বোঝা যায় যে, সে সিলেটের না বরিশালের। আমরা যেহেতু তৎকালীন সময়ে সম্মুখযুদ্ধ করেছি, সেকারণেই আমরা বুঝতে পেরেছিলাম রক্ষীবাহিনীতে ভিনদেশি লোক আছে।’ বিএনপির এই নীতিনির্ধারক বলেন, ‘আজকে আমাদের বিশাল সেনাবাহিনী আছে, বর্ডার গার্ড আছে। প্রতিদিন সীমান্তে গুলির শব্দ আসে একপাশ থেকে। আমাদের দিক থেকে গুলি করা হয় না। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা গুলি ছুঁড়বো না। তাহলে আমরা বিদেশ থেকে এতো অস্ত্রশস্ত্র কিনি কেন? আমাদের নাগরিকদের মারা হচ্ছে, বর্ডার কিলিং হচ্ছে, কিন্তু কোনও প্রতিবাদ নেই।’

গয়েশ্বর বলেন, ‘এখন আমাদের যে সীমানা আছে সেখানে তো গার্ড থাকার দরকার নেই। কয়েকজন চৌকিদার হারিকেন নিয়া দাঁড়িয়ে থাকলেই পারেন। তারা দেশের ভেতরে ঢুকে যাকে খুশি তাকে ধরে নিয়ে যেতে পারে, গুলি করে হত্যা করতে পারে। তবে আজকে এতসব আধুনিক সমরাস্ত্র দিয়ে আমরা কী করি? সেনাবাহিনীর ট্রেনিংটাই হলো সীমান্তের ওপারে গুলি করা। কিন্তু আমরা পণ করেছি সেটা করবো না। সেই মানসিকতাটাই আমরা হারিয়ে ফেলেছি।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এ সদস্য বলেন, ‘মেজর সিনহা হত্যা হলো, পুরো দেশে প্রতিবাদ হলো। ঘটনাস্থলে সেনাবাহিনীর প্রধান গেলেন, পুলিশ প্রধান গেলেন, আসামিরাও গ্রেফতার হলো। একটু খবর নিয়ে দেখেন আসামিরা এখন জেলখানায় আছে কিনা? কোনও খোঁজখবর নাই। হয়তো পরবর্তী হাজিরার সময় বোঝা যাবে আসামিদের আদালতে হাজির করতে পারবে কি পারবে না। তাহলে আমরা কোথায় আছি? আমরা শৃঙ্খল থেকে মুক্ত হয়ে আসলাম, কিন্তু আরেক শৃঙ্খলে আবদ্ধ হলাম আজীবনের জন্য।’

গয়েশ্বর বলেন, ‘বলা হয়- চার নেতার হত্যার জন্য জিয়াউর রহমান দায়ী, শেখ মুজিবের হত্যাকারীদের জিয়াউর রহমান এদেশে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তারিখ বলে ৩ নভেম্বর রাতের ফ্লাইটে সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তারা বিদেশ সফরে গিয়েছেন। তখনতো খালেদ মোশাররফ ছিলেন। জিয়াউর রহমানতো ২ তারিখ ভোর বেলা থেকে বন্দি ছিলেন। সুতরাং খালেদ মোশাররফের সাথে আলোচনা করে জেলখানায় হত্যাকাণ্ড পরিচালনা করা হয়, এ কথা বুঝতে কি কষ্ট হয়?’

ফেসবুকে লাইক দিন

Latest Tweets

তারিখ অনুযায়ী খবর

November 2020
FSSMTWT
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
27282930